করোনাভাইরাসের কারণে খাদ্য সংকটে পড়েছে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের ১৩ দেশের ৪৫ মিলিয়ন মানুষ। সংখ্যাটা গত বছরের চেয়ে দশ শতাংশ বেড়েছে এবার।

আঞ্চলিক সংস্থা দ্য সাউদার্ন আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট কমিউনিটি (এসএডিসি) মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এ শঙ্কার কথা জানিয়েছে।

এসএডিসির প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নিয়মিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অর্থনৈতিক সংকট আর দারিদ্যের মতো বিপর্যয়গুলোর সঙ্গে যুক্ত করোনা মহামারির কারণে এবার সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ব্যবসায়িক কার্যক্রম, চাকরি আর রেমিটেন্সকে।

সংস্থাটি তাদের প্রতিবেদনে বলছে, এটা শহুরে দরিদ্রদের মধ্যে যারা অনানুষ্ঠানিক খাত এবং স্থানীয় বাজার থেকে জীবিকা নির্বাহের ওপর নির্ভর করেন, বিশেষত তাদের জন্য মারাত্মক বিপদ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। এছাড়া খাদ্য সংকটে থাকা মানুষের এই সংখ্যা সামনে আরও বৃদ্ধি পেতে পারে।

এসএডিসি জানিয়েছে, ২০২০ সালে অঞ্চলটির ৮৪ লাখ শিশু পুষ্টিহীনতায় ভুগেছে। আর তাদের মধ্যে ২৩ লাখের জীবন বাঁচানোর মতো চিকিৎসা প্রয়োজন। অনেক শিশু স্কুলে দেওয়া খাবারের ওপর নির্ভর করেই চলতো কিন্তু মার্চ থেকে স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এসব শিশু পড়েছে ভয়াবহ খাদ্য সংকটে।

এসএডিসি নামের ওই আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার সদস্য দেশগুলোর মধ্যে করোনার প্রকোপ সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ আফ্রিকায়। এখন পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৫০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন সাত হাজারের বেশি মানুষ।

তথ্যসূত্র: আল-জাজিরা।